যে ৮টি কারণে নেটওয়ার্কিং ইভেন্টগুলো আপনার ব্যবসার জন্যে খুবই গুরুত্বপূর্ণ

ফোর্বস ম্যাগাজিন এর রিপোর্ট অনুযায়ী, উদ্যোক্তা হিসেবে সফল হতে চাইলে ৭৮% স্টার্টআপ ব্যবসায়ীদের জন্য নেটওয়ার্কিং ইভেন্টগুলো অতীব গুরুত্বপূর্ণ।     

কারণ ৮৫% প্রফেশনালদের মতে, ব্যক্তিগত এবং স্বশরীরে সাক্ষাতের পর তারা অর্থবহ এবং সুসম্পর্ক স্থাপনের জন্য আরোও বেশি আগ্রহী হয়ে উঠেন। 

এমনকি কানাডার ৩৮% ব্যবসায়ি এবং উদ্যোক্তারা  স্বীকার করেছেন যে, এই নেটওয়ার্কিং এর মাধ্যমে তাদের বিজনেস অপরচ্যুনিটি বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। 

Helbig Enterprize এর কর্ণধার Diane Helbig, একজন আন্তর্জাতিক স্বীকৃত বিজনেস এবং লিডারশীপ এডভাইজার এবং এওয়ার্ড জয়ী লেখিকা যথার্থই বলেছেন, 

“Networking is an investment in your business. It takes time and when done correctly can yield great results for years to come”.

নেটওয়ার্কিং যে একটা ইনভেস্টমেন্ট তা আমরা অনেকেই স্বীকার বা বিশ্বাস করতে চাই না। আমাদের মধ্যে অনেইকেই আছেন যারা কোন নেটওয়ার্কিং ইভেন্টে যাওয়ার আগেই লাভ-লোকসানের হিসেব কষতে শুরু করি। অনেকে ইচ্ছাকৃত অবহেলার কিংবা হাজারো অযুহাতে এই ধরণের ইভেন্টে অংশগ্রহন করা থেকে নিজেকে দূরে রাখে। 

এই নেটওয়ার্কিং ইভেন্টগুলো আসলেই কেন এতো বেশি গুরুত্বপূর্ণ? 

নেটওয়ার্কিং ইভেন্ট দ্বারা আমরা কিভাবে লাভবান হতে পারি?

সেই সকল সংশয় এবং দ্বিধাদন্ধ থেকে আমরা তখনই পরিত্রাণ পাবো যখন আমরা আসলেই জানবো কেন আমাদের এই নেটওয়ার্কিং ইভেন্টে অংশগ্রহণ করা উচিত?  

তাহলে চলুন শুরু করে দিই। 

নেটওয়ার্কিং ইভেন্টগুলো কি?  

এখন স্বভাবতই আপনার মনে প্রশ্ন আসতে পারে, এই নেটওয়ার্কিং ইভেন্টগুলো কি?

নেটওয়ার্কিং ইভেন্টগুলো হচ্ছে সেই ধরণের ইভেন্ট যেখানে বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রির প্রফেশনাল এক্সপার্টরা একত্রিত হয় তাদের একে অপরের সাথে সংযোগ এবং সুসম্পর্ক স্থাপনের জন্য। 

যদিও এই কার্যক্রমের উপর ভিত্তি করে ইভেন্টগুলোর ভিন্নতা রয়েছে। যেমন কিছু ইভেন্ট আছে খুব বেশি ক্যাজুয়াল আবার কিছু আছে খুব বেশি ফরমাল। যেখানে ক্যাজুয়াল মিট আপ অনেকটা স্বাধীন একে অপরের আইডিয়া শেয়ার থেকে শুরু করে নিজের মূল্যবান মতামত প্রকাশ করতে পারেন আবার ফরমাল ইভেন্টে নির্দিষ্ট কিছু এক্সাপার্টিস বক্তা হিসেবে তাদের নিয়ে মতামত উপস্থাপন করেন। যেখানে প্রশ্ন উত্তরের মাধ্যমে মানুষের সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করা হয়। তবে এসব ইভেন্টের উদ্দ্যেশ্য থাকে একে অপরের সাথে নেটওয়ার্কিং যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।    

বিভিন্ন ধরণের নেটওয়ার্কিং ইভেন্ট আছে তার মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য হলোঃ 

  • হ্যাপি আওয়ার মিটআপ
  • ক্যারিয়ার/ জব ফেয়ার
  • ইন্ডাস্ট্রি স্পেসিফিক সেমিনার
  • কনফারেন্স/ ট্রেড শো
  • কমিউনিটি সার্ভিস গ্রুপ
  • রাউন্ড আপ টেবিল
  • ওয়ার্কশপ  

#১. নিজের কমফোর্ট জোন থেকে বের হয়ে আসা

নিজের কমফোর্ট জোন থেকে বের হওয়া-এটা কমিউনিকেশন স্কিল ডেভেলপমেন্টের পূর্বশর্ত। আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যিনি বা যারা ইন্ট্রোভার্ট অর্থাৎ নিজেকে গুটিয়ে রাখতে বা জড়তা নিয়ে বসে থাকতে সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। নতুন মানুষের সাথে কিভাবে পরিচিত হতে হয়? কিভাবে মানুষের সাথে পরিচিত হতে হয় তা আমরা অনেকেই জানি না। আমাদের ব্যক্তিগত জীবনের পাশাপাশি পেশাগত জীবনে অনেক ঝামেলার সম্মুখীন হতে হয়। অনেকের ক্যারিয়ার গ্রোথ এই কারণে আটকে যায়। নতুন নতুন মানুষের সাথে মিশতে মিশতে আপনার মধ্যে থাকা সেই সব জড়তা আস্তে আস্তে দূর হয়ে যাবে। 

যেখানে আপনি স্বতস্ফুর্ত ভাবে অন্যের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করতে পারবেন নিমিষেই। আর আপনার ক্যারিয়ার বা প্রফেশনাল গ্রোথ নিশ্চিত করতে সম্ভব হবে। 

#২. নতুন কিছু শিখার সাথে নিজেকে নতুন ভাবে সাজানো 

প্রফেশনাল লাইফে চলতে গেলে আমাদের প্রয়োজনেই নতুন নতুন কিছু স্কিল ডেভেলপ করতে হয়। নিত্যদিনের কাজের চাপে সবসময় সেই কাজ করা সম্ভব হয়ে উঠে না।

কাজ করতে করতে আমরা অনেক সময় বুঝে উঠতে পারি না আমাদের আসলেই কি করা উচিত? 

কোন পথে আগালে পরে আমরা সঠিক দিক নির্দেশনা পাবো, এমনকি সহজেই আমি আমার কাংক্ষিত লক্ষ্যে পৌছাতে সক্ষম হবো? 

নিজের ক্যারিয়ারে আর কি কি ভ্যলু এড করলে পড়ে আমি সবদিক থেকে বেনিফিটেড থাকবো?

কিভাবে ক্যারিয়ার প্ল্যান বা গোল সেট করলে পরে আমার সুনিশ্চিত এবং টেকসই ক্যারিয়ার উপভোগ করতে পারবো?  

এই নিয়ে সকল সংশয় এবং উদ্বেগ কাটিয়ে উঠতে এই নেটওয়ার্কিং ইভেন্টগুলো খুবই সহায়ক।   

#৩. নতুন ব্যবসায়িক পার্টনার খুজে পাওয়া 

একই ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করতে গেলে অনেক ক্ষেত্রে পার্টনারের প্রয়োজন হয়। অনেকেই একা একা একটা ব্যবসা নিজে নিজে সামলাতে হিমশিম খেতে হয়। অনেকেই বুঝে উঠতে পারে না তার কি করা উচিত এবং কি করলে পরে তার সুবিধা হবে? 

সেক্ষেত্রে নতুন ব্যবসায়িক পার্টনার খুজতে এই নেটওয়ার্কিং ইভেন্টগুলো খুব গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে।  

#৪. বিনিয়োগকারিদের সাথে সরাসরি সাক্ষাত

যেকোন ব্যবসার জন্যে প্রয়োজন বিনিয়োগ। অনেকেই পুজি আর বিনিয়োগের অভাবে তার আইডিয়া সঠিকভাবে বাস্তবে রুপ দিতে পারছেন না। আর অনেক বিনিয়োগকারি পুজি নিয়ে বসে আছে, পছন্দসই আইডিয়া আর বিজনেস প্ল্যানের বাস্তব রুপ দেয়ার আশায়। 

সেক্ষেত্রে এই নেটওয়ার্কিং ইভেন্টগুলো একে অপরের সংযোগ স্থাপনে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে।         

#৫. ব্যবসায়িক ট্রেন্ড নিয়ে নিজেকে আপ টু ডেট রাখতে

যে কোন ব্যবসার একটা ট্রেন্ড থাকে। আপনি আজকে যে প্রডাক্ট বা সার্ভিস নিয়ে কাজ করছেন আগামি দিনে তার ভবিষ্যত কি এই নিয়ে আপনার তেমন কোন স্বচ্ছ ধারণা নাও থাকতে পারে। বর্তমানে একই ইন্ডাস্ট্রি ব্যবসায়ীরা ভবিষ্যতের জন্য কি প্ল্যান করছে তা আপনি নাও জানতে পারেন। কারণ সবকিছু যে ইন্টারনেটে পাওয়া যাবে এমন কিন্তু নয় আবার পাওয়া গেলেও সেটা কতটুকু নিশ্চিত তা নিয়ে কিন্তু সংশয় থেকেই যায়। তাই ভবিষ্যতের জন্য নিজেকে আপ-টু-ডেট রাখতে এই ধরণের নেটওয়ার্কিং খুব গুরুত্বপূর্ণ।  

#৬. ব্যবসায়িক রিকোগনিশন স্থাপন করা 

অনেকে ব্যবসা করছে ঠিকই কিন্তু সঠিক মূল্যায়ন বা রিকোগনিশেন পাচ্ছে না। তারা আসলে কিভাবে তাদের প্রডাক্ট বা সার্ভিসে ভ্যালু সংযোগ করবে এই নিয়ে সংশয় প্রকাশ করে। সোশ্যাল ভ্যালু রিকগনিশনে এই নেটওয়ার্কিং ইভেন্টগুলো যথেষ্ট ভুমিকা রাখে। যেখানে মানুষ সেই কোম্পানির কোন প্রডাক্ট বা সার্ভিস মানুষের সামনে উপস্থাপন করার সুযোগ পায়। তাছাড়া অনেকেই চমৎকার আইডিয়া বা বিজনেস প্ল্যান্স এক্সেকিউশনের মাধ্যমে এওয়ার্ড অর্জন করার সুযোগ পায় যা তার ভ্যলু বাড়িয়ে দেয় বহুগুণে।    

#৭. নিজের টার্গেট কাস্টমারদের খুজে পাওয়া 

অনেকেই এই ধরণের নেটওয়ার্কিং ইভেন্টগুলোতে তার প্রসপেক্টিভ ক্লায়েন্ট বা কাস্টমার খুজে পান যা তার ব্যবসায়িক প্রসার বাড়িয়ে দেয় বহুগুণে। অনেকেই তার প্রডাক্ট এবং সার্ভিস সম্পর্কিত রিভিউ খুজে পান সেই ইভেন্ট থেকে। তার কাস্টমাররা আসলেই কি চায়? কিভাবে একজন উদ্যোক্তা বা ব্যবসায়ী তার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস ডিজাইন করতে পারবে, কিভাবে ভ্যালু এডিশন করতে পারবে? ভ্যালু এডিশন করার মধ্যমে কিভাবে মুনাফা অর্জন করা সম্ভব?

#৮. ইন্ডাস্ট্রি লিডার এবং এক্সপার্টদের সাথে স্বশরীরে সাক্ষাত

ইন্ডাস্ট্রি এক্সপার্টদের সাথে স্বশরীরে সাক্ষাত নেটওয়ার্কিং ইভেন্টের অন্যতম প্রধান আকর্ষণ যেখানে আপনি আপনার মেন্টর বা যাকে আপনি ফলো করেন তার সাথে সাক্ষাতের বিশাল সম্ভাবনা থাকে।

আপনাদের কাংক্ষিত মেন্টর থেকে পাওয়া দিক নির্দেশনা আপনার ক্যারিয়ারের জন্য গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা রাখবে।

উপরোক্ত ৮ টি কারণ ছাড়াও আরো অনেক কারণ আছে যার জন্য আপনার নেটওয়ার্কিং ইভেন্টগুলোতে অংশগ্রহন করা উচিত  যা আপনার নিজের ক্যারিয়ারকে বহুদুর এগিয়ে নিয়ে যাবে।

জনপ্রিয় কোর্সসমূহ

সাম্প্রতিক ব্লগসমূহ